Date & Time -  
Breaking »

রংপুর সিটিতে ভোট ২১শে ডিসেম্বর থাকছে ইভিএম ও সিসি ক্যামেরা

অনলাইন ডেস্ক:-  রংপুর সিটি করপোরেশন (রসিক) নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ঘোষিত  তফসিল অনুযায়ী রংপুর সিটিতে ভোটগ্রহণ করা হবে ২১শে ডিসেম্বর। রিটার্নিং অফিসারের কাছে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ তারিখ ২২শে নভেম্বর এবং  মনোনয়ন বাছাই হবে ২৫ থেকে ২৬শে নভেম্বর। মনোনয়ন বাছাইয়ের বিরুদ্ধে আপিল করা যাবে ২৭ থেকে ২৯শে নভেম্বর এবং অপিল নিষ্পত্তি হবে ৩০শে নভেম্বর থেকে  ২রা ডিসেম্বর পর্যন্ত। আর প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ৩রা ডিসেম্বর। প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতীকে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া এই নির্বাচনে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হবে ৪ঠা ডিসেম্বর। গতকাল নির্বাচন ভবনে রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা উপলক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদা জানান, রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে  আংশিকভাবে কয়েকটি ভোট কেন্দ্রে ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ও ক্লোজ সার্কিট (সিসি) ক্যামেরা ব্যবহার করা হবে। পুরাতন ইভিএম বাদ দিয়ে নতুন ইভিএম মেশিন পরীক্ষামূলক ব্যবহার করা হবে এই নির্বাচনে। রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপ শেষে রংপুর সিটিতে বর্তমান কমিশনের সক্ষমতা প্রমাণের কোনো বিষয় থাকবে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে  সিইসি বলেন, এ নির্বাচনে কমিশনের সক্ষমতা প্রমাণের কিছু নেই। নির্বাচন সুষ্ঠু করতে যা করণীয় ইসি আইন অনুযায়ী তা করবে। নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম বলেন, সিটি করপোরেশন আইন অনুযায়ী গত ২রা নভেম্বর রাত ১২টার পর থেকে  নির্বাচনী প্রচারণা সামগ্রী অর্থাৎ শুভেচ্ছা পোস্টার, ব্যানার ও বিলবোর্ড সরানোর নির্দেশ দেয়া হয়। তারপর যদি এসব অপসারণ না হয়ে থাকে। তফসিলের পরে নির্বাচনী আইন অনুযায়ী  কমিশন সরাসরি ব্যবস্থা নেবে। নির্বাচনের আগেই রংপুর সিটিতে অনেক প্রার্থী অঢেল টাকা খরচ করেছে- এমন বিষয়ে কমিশনের কাছে কোনো তথ্য আছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে রফিকুল ইসলাম বলেন, মনোনয়ন জমা দেয়ার আগে কে প্রার্থী তা আমরা বলতে পারব না। সেক্ষেত্রে কে টাকা খরচ করল এটা আমাদের বলার কিছু ছিল না। এখন তফসিল হয়েছে আইন অনুযায়ী এখন কমিশন কঠোর ব্যবস্থা নেবে। উল্লেখ্য, গত ২০শে ডিসেম্বর ২০১২ সালে প্রথম রংপুর সিটি করপোরেশনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। বিদ্যমান আইন অনুযায়ী আগামী ২৮শে ফেব্রুয়ারি ২০১৮ এ সিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হবে। মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পূর্ববর্তী ১৮০ দিনের মধ্যে রংপুর সিটিতে নির্বাচন করার আইনগত বাধ্যবাধকতা রয়েছে। এ সিটি করপোরেশনে বর্তমানে ভোটার ৩ লাখ ৮৮ হাজার ৪২১ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ৯৬ হাজার ৬৫৯ এবং নারী ১ লাখ ৯১ হাজার ৭৬২ জন। সম্ভাব্য  ভোটকেন্দ্র ১৯৬টি,  ভোটকক্ষ ১ হাজার ১৭৭টি। পাঁচবছর আগে ভোটার ছিল ৩ লাখ ৫৭ হাজার ৭৪২ জন। সেই নির্বাচনে দলীয় প্রতীকে প্রার্থী হওয়ার সুযোগ ছিল না। নির্বাচন বিশ্লেষকদের মতে, সংসদ নির্বাচনের আগে ছয় সিটি নির্বাচনকে মর্যাদার লড়াই হিসেবে দেখছে রাজনৈতিক দলগুলো। সিটি নির্বাচন নৌকা-ধানের শীষের জন্য অগ্নিপরীক্ষা।

খবর মানবজমিন জনগণের কাছে কোন প্রতীকের কেমন কদর তাও প্রমাণ হবে এ নির্বাচনে। তাই সিটি নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর মনোনয়নে ব্যাপক হিসাব-নিকাশ করছে প্রধান দুই দল। সেই সঙ্গে দুই দলের শরিকদের সঙ্গে চলছে ব্যাপক আলাপ-আলোচনা। ভোট টানার চেষ্টায় মরিয়া দুই দল।

 

 এই রিপোর্ট পড়েছেন  150 - জন
 রিপোর্ট »মঙ্গলবার, ৭ নভেম্বার , ২০১৭. সময়-১:০০ AM | বাংলা- 23 Kartrik 1424
রিপোর্ট শেয়ার করুন  »
Share on Facebook!Digg this!Add to del.icio.us!Stumble this!Add to Techorati!Seed Newsvine!Reddit!

Leave a Reply

4 + 7 =